ভারতের হয়ে খেলেছেন নয়টি টেস্ট, এবার মাত্র ৩৪ বছর বয়সেই লাল-বলের ক্রিকেটকে বিদায় জানালেন এই পেসার

ভারতীয় পেসার বরুণ অ্যারন ২০০৮ সালে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক করেন।

তরুণ বয়সে ক্রিকেটাররা অনেক স্বপ্ন নিয়ে নিজেদের যাত্রা শুরু করেন। তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে একাধিক বিষয় তাদের সামনে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায়। এর ফলে অনেক ক্রিকেটার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সফলতা না পেয়ে অবসর ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নেন। এবার প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে দুরন্ত পারফরম্যান্স করা বরুণ অ্যারন (Varun Aaron) প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা করলেন।

বর্তমানে চলমান রঞ্জি ট্রফিতে (Ranji Trophy) আজ থেকে ঝাড়খণ্ড রাজস্থানের (Jharkhand vs Rajasthan Match) বিপক্ষে মাঠে নেমেছে। এই ম্যাচে বরুণ অ্যারন ঝাড়খণ্ডের হয়ে শেষ প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট খেলছেন। তিনি ২০০৮ সালে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক করেন। তারপর বরুণ ধারাবাহিকভাবে ভালো পারফরমেন্স করে নির্বাচকদের নজরে আসেন এবং ২০১১ থেকে ২০১৫-এর মধ্যে জাতীয় দলের হয়ে ৮ টি টেস্ট ম্যাচে মোট ১৮ টি উইকেট সংগ্রহ করেন। এছাড়াও তার ৬৫ টি প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট ম্যাচে মোট ১৬৮ টি উইকেট সংগ্রহে আছে।

ইএসপিএনক্রিকইনফোকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এই ভারতীয় পেসার বলেন, “আমি ২০০৮ সাল থেকে লাল বলের ক্রিকেট খেলছি। যেহেতু আমি দ্রুত বোলিং করি ফলে একাধিক চোট পেয়েছি। আমি এখন বুঝতে পারছি যে আমার শরীর আমাকে লাল বলের ক্রিকেটে দ্রুত বোলিং চালিয়ে যেতে দেবে না। তাই অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমার পরিবারের সামনে জামশেদপুরে এটি আমার শেষ ম্যাচ, কারণ এখানে আমি সাদা বলের ক্রিকেট বেশি খেলি না।”

৩৪ বছর বয়সী এই পেসার আরও বলেন, “বোলিং করার সময় পেস আমার কাছে প্রিয় বিষয়। আমি যখনই বোলিং করি আমার একমাত্র ফোকাস থাকে যতটা দ্রুত বল করতে পারা যায়। কিন্তু আপনাকে আপনার শরীরকেও বুঝতে হবে। আমি এমআরএফ-এ ‘পেস বোলার ট্যালেন্ট হান্ট’ নামে একটি প্রকল্পে অংশগ্রহণ করেছি। আমরা সারা ভারতের তরুণ ফাস্ট বোলারদের নিয়ে কাজ করব। এতে প্রায় ১৫০০ বোলার অংশ নিয়েছেন। আমরা প্রতিভা খুঁজতে সারা দেশে ঘুরে বেড়াচ্ছি।”