পাঁচজন সফল ক্রিকেটার যারা ক্রিকেটের সাথে ব্যবসায়িক দিক থেকেও অনেক সফলতা অর্জন করেছেন

ভারতবর্ষে ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ক্রিকেটাররাও ব্র্যান্ড হিসাবে নিজেদের জায়গা করে নিচ্ছেন। ক্রিকেট একটি নির্দিষ্ট বয়স পর্যন্ত খেলা যায় তাই অবসরের পরে অনেক ক্রিকেটাররা বিভিন্ন ব্যবসায়ী কোম্পানি তৈরি করে থাকেন। বর্তমানে অনেক ক্রিকেটার ক্রিকেট খেলার সঙ্গে সঙ্গেই সফল ব্যবসায়ী হয়ে উঠেছেন। এখানে এইরকম পাঁচ ক্রিকেটারের কথা আলোচনা করা হলো যারা বর্তমানে একজন সফল ব্যবসায়ী রূপে আত্মপ্রকাশ করেছেন।

১) যুবরাজ সিং (Yuvraj Singh)

২০১১ বিশ্বকাপ জয়ী দলের অন্যতম সদস্য যুবরাজ সিং আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে ২০১৯ সালে অবসর ঘোষণা করেন। এরপর থেকে তিনি তার ব্যবসায় সম্পূর্ণ মনোনিবেশ করেন। নিজে একজন ক্যান্সার থেকে ফিরে আসা যোদ্ধা হওয়ায় তিনি ‘YouWeCan’ নামে একটি সংস্থা স্থাপন করেছেন। এই সংস্থা ক্যান্সার রোগীদের বিভিন্নভাবে সাহায্য করে থাকে। মাইক্রোসফ্টের সঙ্গে অংশীদারিত্বে এই সংস্থা নতুন নতুন ব্যবসা বিশেষ করে স্বাস্থ্য ভিত্তিক কোম্পানি, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি কোম্পানিগুলিতে ইনভেস্ট করে। এছাড়াও যুবরাজ ‘sports365.in’ ই-কমার্স অনলাইন স্টোরে বিভিন্ন রকম ক্রিকেট সরঞ্জাম বিক্রি করে থাকেন।

২) কুমার সাঙ্গাকারা ও মাহেলা জয়বর্ধনে (Kumar Sangakkara and Mahela Jayawardene)

ক্রিকেট মাঠে সাঙ্গাকারা ও জয়বর্ধনের ব্যাটিং জুটির কথা সকলেই জানেন। মাঠের বাইরেও তাদের ব্যবসায়ীক জুটি যথেষ্ট সফল। কুমার সাঙ্গাকারা ও মাহেলা জয়বর্ধনে ভালো ব্যাটসম্যানের সঙ্গে সঙ্গে তারা দুজনেই ভোজনরসিক। তাই দুজনে একটি সামুদ্রিক খাবারের রেস্তোরাঁ শুরু করেছিলেন। উদ্বোধন হওয়ার পর থেকেই এই রেস্তোরাঁ সকলের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। ভালো খাবারের গুণমান, নিখুঁত পরিবেশ সব দিক থেকেই খাদ্যপ্রেমীরা আকর্ষিত হন। এটি দেখে শচীন তেন্ডুলকার একটি নিজের রেস্তোরাঁ শুরু করেন। তবে সেটি ২০০৯ সালে বন্ধ হয়ে যায়। সাঙ্গাকারা ও জয়বর্ধনে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ভারতেও তাদের রেস্তোরাঁর শাখা খুলেছেন।

৩) শচীন তেন্ডুলকার (Sachin Tendulkar)

ভারত সহ পৃথিবীর অন্যতম সফল ব্যাটসম্যান শচীন তেন্ডুলকার। ২০০০ সালের পরে তিনি ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে মনোনিবেশ করার চেষ্টা করেন। শচীন একটি বড়ো ব্যবসায়িক গোষ্ঠীর সাথে ‘তেন্ডুলকারস’ নামে একটি খাবারের রেস্তোরাঁ স্থাপন করেন। কিন্তু গ্রাহকদের খারাপ প্রতিক্রিয়ার জন্য ২০০৯ সালে রেস্তোরাঁটি বন্ধ হয়ে যায়। তারপর অবসর নেওয়ার পর তিনি ক্রীড়া এবং গেমিং ভার্চুয়াল বাস্তবতা-ভিত্তিক অভিজ্ঞতা প্রদানকারী সংস্থা ‘Smaaash’ কম্পানিতে বিনিয়োগ করেন। Smartron নামে ইন্টারনেট টেকনোলজি ভিত্তিক সংস্থাও প্রতিষ্ঠা করেন শচীন। ২০২১ সালে জনপ্রিয় লার্নিং অ্যাপ Unacademy-এর সাথেও যুক্ত হয়েছেন তিনি। শচীন তেন্ডুলকার প্রকাশ না করলেও এই অ্যাপে একটি বিশাল অংকের টাকা বিনিয়োগ করেছেন।‌

৪) মহেন্দ্র সিং ধোনি (Ms Dhoni)

প্রাক্তন ভারতীয় বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি একজন সফল ব্যবসায়ী হিসাবেও আত্মপ্রকাশ করেছেন। ২০১৬ সালে তিনি স্পোর্টস সরঞ্জাম প্রস্তুতকারী ব্র্যান্ড সেভেনের সাথে যুক্ত হন। ২০০১ সালে ধোনি ‘খাতাবুক’ নামে একটি অ্যাপে‌ বিনিয়োগ করেন। এমনকি তার পুরানো বন্ধু অরুণ পান্ডের সাথে ধোনি জিম স্পোর্টসফিট ওয়ার্ল্ডেও যুক্ত হয়েছেন। গত বছর থেকে ধোনি চলচ্চিত্র জগতেও পা রাখেন। ‘ধোনি এন্টারটেইনমেন্ট প্রাইভেট লিমিটেড’ নামে একটি প্রোডাকশন হাউস চালু করতে চলেছেন তিনি। দক্ষিণ ভারতের ধোনির জনপ্রিয়তা সঙ্গে সঙ্গে এই প্রোডাকশন হাউসও যথেষ্ট লাভবান হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

৫) বিরাট কোহলি (Virat Kohli)

ভারতীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে এখন বিরাট কোহলি তার ব্যবসায়িক সাম্রাজ্যের মধ্যে শীর্ষে রয়েছেন। ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসাবে পুমার সাথে চুক্তি করার সঙ্গে সঙ্গে তিনি একটি নতুন ব্র্যান্ড তৈরি করেন। বিরাট তার ১৮ নম্বর জার্সির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে এই মুহূর্তের অন্যতম স্পোর্টস ব্র্যান্ড One8 প্রতিষ্ঠা করেন। এমনকি বিরাট এই ব্র্যান্ডিংকে আরও এগিয়ে নিয়ে যান। তিনি নুয়েভা (বিরাট কোহলি এবং আনুশকা শর্মার মালিকানাধীন কম্পানি)-এর সঙ্গে ‘One8 কমিউন’ নামে একটি মাল্টি-কুইজিন রেস্তোরাঁ খোলেন। পোষাক ও অনুষাঙ্গিক ব্র্যান্ড হিসেবে ‘Wrogn’ নামে শেয়ারের মালিক তিনি। ফুটবলে এফসি গোয়া ক্লাবের মালিকাধীন বিরাট কোহলি আরো একাধিক কোম্পানির সাথে যুক্ত আছেন।