Wrestler Protest: কুস্তিগীরদের প্রতিবাদে হাজির কৃষক আন্দোলনের নেতা সহ আরও অনেকে, চুপ সরকার

ভারতের শীর্ষ কুস্তিগীররা প্রতিবাদ জানানোর জন্য গতকাল কঠিন পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। সম্প্রতি তাদের দিল্লির যন্তর মন্তরে প্রতিবাদের স্থানে পুলিশি অত্যাচারের অভিযোগ আসে। তারপর তারা গতকাল তাদের কঠোর পরিশ্রমে অর্জিত পদকগুলি গঙ্গায় ভাসিয়ে দিয়ে ভারতের ক্রীড়া জগতে‌ প্রতিবাদের এক নতুন নজির স্থাপন করার চেষ্টা করেন।

উল্লেখ্য, ভারতের শীর্ষ কুস্তিগীররা তরুণ ক্রীড়াবিদদের যৌন হয়রানির অভিযোগে কুস্তি ফেডারেশনের সভাপতির পদত্যাগ এবং গ্রেপ্তারের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে দিল্লিতে আন্দোলন করে আসছেন। কুস্তিগীররা রেসলিং ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া (WFI)-এর প্রধান ব্রিজ ভূষণ শরণ সিংকে অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবিতে‌ সরব হন। রবিবার রাজধানীতে প্রতিবাদ চলার সময় ভিনেশ ফোগাট (Vinesh Phogat), সাক্ষী মালিক (Sakshi Malik) এবং বজরং পুনিয়া (Bajrang Punia) মতো বিশ্ববরেণ্য কুস্তিগীরদের পুলিশ টেনে হেঁচড়ে প্রিজন ভ্যান তোলে।

এরপরেই ভারতবর্ষ জুড়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। সমাধান সূত্র না মেলায় দেশকে গর্বিত করা বহু কষ্টে অর্জিত ম্যাডেলগুলিকে কুস্তিগীররা হরিদ্বারের গঙ্গায় ফেলে দিয়ে প্রতিবাদ জানানোর সিদ্ধান্ত নেয়। এর ফলে কুস্তিগীরদের‌ সমর্থনে হরিদ্বারে শত শত মানুষ এসে পৌঁছায়। কৃষক নেতা নরেশ টিকাইত সেখানে উপস্থিত হয়ে কুস্তিগীরদের সাথে দেখা করেন এবং পদক না ফেলার জন্য তাদের বোঝান। এ বিষয়ে সরকারের নীরবতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। এরপর কুস্তিগীররা তাদের‌ এরকম নজিরবিহীন প্রতিবাদের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন।

এর আগে পৃথিবীর বিখ্যাত বক্সার মোহাম্মদ আলী নদীতে নিজের মেডেল ফেলে দিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন। তিনি জাতিগত বৈষম্যের কারণে এক রেস্তোরাঁর পরিষেবা থেকে বঞ্চিত হন। এরপর তিনি তার অলিম্পিক স্বর্ণপদক ওহিলো নদীতে ফেলে দিয়ে আমেরিকার বর্ণ বৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানান।