World Cup Qualifiers: রাজার রাজ্যে ধ্বংস ডাচরা, অন্যদিকে আমেরিকাকে হারিয়ে সূর্যোদয় নেপালের

আজ জিম্বাবুয়েতে অনুষ্ঠিত হওয়া বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারের (World Cup Qualifiers 2023) তৃতীয় দিনে দুটি ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল নেদারল্যান্ড ও জিম্বাবুয়ে অন্যদিকে আমেরিকা ও নেপাল। বিশ্বকাপের রাস্তা মসৃণ করতে চারটি দলের কাছেই আজকের ম্যাচ দুটো ছিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। চারটি দলই শক্তিশালী দল। যে কোনদিন যে কাউকে হারিয়ে দিতে পারে এই দলগুলি।

নেদারল্যান্ড বনাম জিম্বাবুয়ে (Netherlands vs Zimbabwe)

এই ম্যাচে নেদারল্যান্ড প্রথম ব্যাটিং করতে নামলে ওপেনিং এ অসাধারণ শুরু করে। ১২০ রানের মাথায় নেদারল্যান্ড প্রথম উইকেট হারায়। দলের দুই ওপেনারই অর্ধশত রান করেন। মাঝপথে নেদারল্যান্ডসের গাড়ি একবার আটকালো খুব সহজে ৫০ ওভারে ৩০০ রানের গণ্ডি পেরোই তারা। সেই লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আগের ম্যাচের মতোই দাপুটে শুরু করে জিম্বাবুয়ে।

জিম্বাবুয়ের দুই ওপেনারও দলকে ভালো শুরু দেন। ৮০ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। তবে দলের রান গতি কমতে দেননি আগের ম্যাচের নায়ক সিন উইলিয়ামস (Sean Williams)। আগের ম্যাচের মত এ ম্যাচেও দ্রুত গতিতে রান বানাতে থাকেন তিনি। আজ ৯১ রানে আউট হয়ে শতরান মিস করেন উইলিয়ামস। তবে অন্যদিকে দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ প্লেয়ার সিকান্দার রাজা (Sikandar Raza) আরো দ্রুতগতিতে রান বানিয়ে ৪০ ওভারের মাথায় দলকে জয় এনে দেন সাথে সাথে নিজের শতরানও পূরণ করেন। বল হাতে চার উইকেট এবং ব্যাট হাতে শতরানের জন্য ম্যাচের প্লেয়ার অফ দ্যা ম্যাচ ঘোষিত হন তিনিই।

আমেরিকা বনাম নেপাল (USA vs Nepal)

আমেরিকা ও নেপাল দুটি দলই ক্রিকেটে বর্তমানে উদীয়মান দল। তাই এই দুই দলের মধ্যে ম্যাচটি ছিল। আমেরিকা প্রথম ব্যাটিং করতে নামলে নেপালের বোলিংয়ের সামনে প্রথমেই নাজেহাল হয়ে পড়ে তারা। মাত্র ১৮ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলে আমেরিকা। তবে সেখান থেকে লড়ে দলকে এগিয়ে নিয়ে যান সুশান্ত মাদোনী (Sushant Modani) এবং সায়ান জাহাঙ্গীর (Shayan Jahangir)। জাহাঙ্গীর শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে নিজের শতরান পূরণ করেন এবং দলকেও ২০০ পার পৌঁছে দেন।

২০৮ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে নেপালও উইকেট হারায় প্রথমে। তবে ধাক্কা সামলে, ভীম সারকি (Bhim Sarki) এবং দীপেন্দ্র সিং (Dipendra Singh) বড় পার্টনারশিপ করে দলকে সহজেই জয়ের মুখ দেখান। মাত্র ৪৩ ওভারের মধ্যেই জয়লাভ করে তারা। ম্যাচের দুর্দান্ত বোলিং করে চার উইকেট নেওয়ার জন্য প্লেয়ার অফ দ্যা ম্যাচ পুরস্কারটি দেওয়া হয় করণ কেসি’কে (Karan KC)।