২০০৭ সালে শচীন-যুবিকে ছেড়ে কেন ধোনিকে অধিনায়ক করা হয়েছিল? জানালেন তখনকার নির্বাচক

২০০৭ সালে মহেন্দ্র সিং ধোনি (MS Dhoni) ভারতের হয়ে প্রথম অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পান। সেই বছরেই তার নেতৃত্বে প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে (T20 World Cup) ভারত চ্যাম্পিয়ন হয়। কিন্তু দলে শচীন তেন্ডুলকার (Sachin Tendulkar), যুবরাজ সিং (Yuvraj Singh)-এর মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটার থাকা সত্ত্বেও কেন ধোনিকে অধিনায়কের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল? এবার এই বিষয়ে জানালেন প্রাক্তন ক্রিকেটার ও প্রাক্তন বিসিসিআই নির্বাচন কমিটির প্রধান দিলীপ বেঙ্গসরকার (Dilip Vengsarkar)।

২০০৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজে একদিনের বিশ্বকাপে ভারতীয় দল রাহুল দ্রাবিড়ের নেতৃত্বে হতাশাজনক পারফরমেন্স করে। তারপর ১৪ সেপ্টেম্বর ২০০৭ সালে তিনি সমস্ত ফরম্যাট থেকে অধিনায়ক হিসাবে পদত্যাগ করেন। এরপরই প্রথম শুরু হওয়া ২০০৭ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য মহেন্দ্র সিং ধোনিকে অধিনায়ক হিসাবে দায়িত্ব দেওয়া হয়। কিন্তু সেই সময় ভারতীয় দলে বীরেন্দ্র সেহবাগ (Virender Sehwag), যুবরাজ সিং, সচিন তেন্ডুলকারের মতো অভিজ্ঞ তারকা ক্রিকেটার উপস্থিত ছিলেন তারপরও ভারতীয় দলের দায়িত্ব যায় তরুণ উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান ধোনির হাতে। এবার এই বিষয়ে তৎকালীন নির্বাচকদের অন্যতম দিলীপ বেঙ্গসরকার অজানা তথ্য প্রকাশ করলেন।

তিনি এক সাক্ষাৎকারে বলেন, “আমরা দেখেছি খেলার প্রতি ধোনির দৃষ্টিভঙ্গি, শারীরিক ভাষা, তার সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতা, তিনি কীভাবে অন্য সতীর্থদের সাথে কথা বলেন এবং তার প্রতিটি খেলোয়াড়দের সঙ্গে ভাবনা চিন্তার সামঞ্জস্য রাখার দক্ষতা। এই সমস্ত বিষয়ের উপর নির্ধারণ করেই শচীনের সুপারিশ থাকলেও ২০০৭ সালে ধোনিকে অধিনায়ক হিসাবে দায়িত্ব দেওয়া হয়।”

ধোনি ভারতের হয়ে ২০০ টি একদিনের ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছেন তার মধ্যে তিনি ১১০ টি ম্যাচে জয় লাভ করেছেন। টি-টোয়েন্টি ম্যাচে সবচেয়ে বেশি নেতৃত্ব দেওয়া অধিনায়ক ধোনি। তার নেতৃত্বে ৭২ টি টি টোয়েন্টি ম্যাচে ভারত ৪১ টিতে জয় পায়। মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বেই ২০০৭ সালে ভারত টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, ২০১১ সালে ভারত একদিনের বিশ্বকাপ এবং ২০১৩ সালে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জেতে।