৭ জন এমন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার যারা অবসর ভেঙে আবারও দেশের হয়ে খেলেছিলেন

বিভিন্ন দেশে ক্রিকেটের জনপ্রিয়তার সঙ্গে সঙ্গে একাধিক তরুণ ক্রিকেটার আন্তর্জাতিক মঞ্চে উঠে আসছেন। আবার অন্যদিকে খুব অল্প বয়সেই অনেক গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করছেন। বিশ্বজুড়ে টি-টোয়েন্টি লিগে বিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে দেশের হয়ে খেলার প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন অনেক আন্তজার্তিক ক্রিকেটাররা। আমরা এখানে এমন ৭ জন উল্লেখযোগ্য ক্রিকেটারের কথা বলবো যারা অবসর ভেঙে ফিরে এসে আবারও দেশের হয়ে খেলেছেন।

১) শাহিদ আফ্রিদি (Shahid Afridi): পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক শাহিদ আফ্রিদি পৃথিবীর অন্যতম সেরা স্পিন অলরাউন্ডার। তিনি পাকিস্তানের হয়ে ৩৯৮ টি একদিনের ম্যাচে ৮০৬৪ রানের সঙ্গে নিয়েছেন ৩৯৫ টি উইকেট। আফ্রিদি পাঁচবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছিলেন। তবে তিনি চারবার অবসর ভেঙে আবারও দেশের হয়ে খেলেন। তবে ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে স্থায়ীভাবে আফ্রিদি অবসরের ঘোষণা করেন। তবে আফ্রিদি এখনো বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় টি-টোয়েন্টি লিগ খেলেন।

২) কেভিন পিটারসেন (Kevin Pietersen): ইংল্যান্ডের হয়ে তিন ফরম্যাটেই কেভিন পিটারসেনের অবদান উল্লেখযোগ্য। তিনি ইংল্যান্ডের হয়ে ১০৪ টেস্টে ৮১৮১ রান করেছেন। ২০১৮ সালে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের সাথে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়লে পিটারসেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করেন। তবে একমাস পরেই তিনি অবসর ভেঙে বেরিয়ে এসে আবার ইংল্যান্ডের প্রতিনিধিত্ব করেন। তারপর ২০১৮ সালেই বিশ্ব ক্রিকেটকে স্থায়ীভাবে বিদায় জানান পিটারসেন।

৩) কার্ল হুপার (Carl Hooper): ওয়েস্ট ইন্ডিজের অন্যতম কিংবদন্তি অলরাউন্ডার কার্ল হুপার ১৯৯০-এর দশকে আন্তর্জাতিক দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন। ১৯৯৯ সালের বিশ্বকাপের পর অবসরের ঘোষণা করেন তিনি। কিন্তু হুপার দুইবছর পর ২০০১ সালে অবসর ভেঙে অধিনায়ক হিসাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে আবার ফিরে আসেন। তারপর ২০০৩ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে কার্ল হুপার শেষ অবসর ঘোষণা করেন।

৪) ডোয়েন ব্রাভো (Dwayne Bravo): পৃথিবীর সেরা টি-টোয়েন্টি লিগেগুলিতে এখনও দুরন্ত পারফরম্যান্স করছেন ডোয়েন ব্রাভো। এই ওয়েস্ট ইন্ডিজ অলরাউন্ডার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে ২০১৮ সালে নিজের অবসর ঘোষণা করেন। তবে ২০২০ সালে অবসর থেকে ফিরে এসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে তিনি আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে একটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলেন। তারপর ২০২১ সালের ৬ নভেম্বর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে সম্পূর্ণরূপে বিদায় জানান ব্রাভো।

৫) ইমরান খান (Imran Khan): পাকিস্তানের অন্যতম সফল অধিনায়ক ইমরান খান। পাকিস্তানের হয়ে তিনি ৮৮ টি টেস্ট ম্যাচে ৩৬২ টি উইকেট নিয়েছেন। ১৯৯২ সালে তার নেতৃত্বে একমাত্র একদিনের বিশ্বকাপ জেতে পাকিস্তান। তবে এর আগে ১৯৮৭ সালেই তিনি অবসর ঘোষণা করেছিলেন। তবে তিনি অবসর ভেঙে বেরিয়ে এসে পাকিস্তানকে বিশ্বকাপ জিততে অনেক সাহায্য করেছেন।

৬) আম্বাতি রায়ডু (Ambati Rayudu): প্রাক্তন ভারতীয় ব্যাটসম্যান আম্বাতি রায়ডু ভারতের হয়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেছেন। ভারতের হয়ে এখনও পর্যন্ত তিনি ৫৫ টি একদিনের ম্যাচে ১৬৯৪ রান করেছেন। ২০১৯ সালে ভারতীয় বিশ্বকাপ দলে তার নাম না থাকায় তিনি অবসরের সিদ্ধান্ত নেন। কিন্ত পরবর্তীকালে রায়ডু এই সিদ্ধান্তের পরিবর্তন করেছিলেন। তবে ২০২৩ সালে চেন্নাই সুপার কিংস পঞ্চবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর অবশেষে তিনি শেষ অবসর ঘোষণা করেন। তবে ফের অবসর ভেঙে আবার আমেরিকার টি-টোয়েন্টি লিগে খেলতে চলেছেন রায়ডু।

৭) মঈন আলী (Moeen Ali): ইংল্যান্ডের অন্যতম অভিজ্ঞ ক্রিকেটার মঈন আলী সাদা বালের ক্রিকেটে বেশি মনোযোগ দেওয়ার জন্য ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তিনি টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করেন। তবে সাম্প্রতিক সময় অ্যাশেজের মতো গুরুত্বপূর্ণ সিরিজে ইংলিশ স্পিনার জ্যাক লিচের চোটের কারণে আবারও আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে মঈন আলী ফিরতে চলেছেন। এখনো পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ইংল্যান্ডের হয়ে মঈন আলী ৬৪ টি টেস্ট ম্যাচে ২৯১৪ রানের‌ সঙ্গে ১৯৫ টি উইকেট নিয়েছেন।