উন্নতির শিখরে নেপাল ক্রিকেট দল, নিজেদের থেকে শক্তিশালী নেদারল্যান্ডকে হারিয়ে দিল ৯ উইকেটে

আজ নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে প্রথম থেকেই নেপালের বোলিং আক্রমণ বিপক্ষদের চাপের মুখে ফেলে দেয়।

বিশ্ব মঞ্চে ক্রিকেটের জনপ্রিয়তার সঙ্গে সঙ্গে একাধিক নতুন দেশ উঠে এসে নিজেদের জায়গা করে নিচ্ছে। ফলে এই বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে (T20 World Cup 2024) ২০ টি দেশ অংশগ্রহণ করবে। এর মধ্যেই এখন আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ লিগ ২ (ICC Cricket World Cup League 2)-এ একাধিক দেশ একে অপরের বিপক্ষে মাঠে নেমেছে। এবার আজ এই টুর্নামেন্টে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে নেপাল (Netherlands vs Nepal Match) আলোচনায় উঠে এলো।

আজ নেপালের টিইউ ক্রিকেট গ্ৰাউন্ডে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে নেপাল প্রথমে টসে জিতে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেয়। এর ফলে নেদারল্যান্ডসের হয়ে মাইকেল লেভিট (Michael Levitt) এবং ম্যাক্স ও’ডাউড (Max O’Dowd) ওপেনিং করতে আসেন। তবে প্রথম থেকেই নেপালের বোলিং আক্রমণ বিপক্ষদের চাপের মুখে ফেলে দেয়। ফলে দুই ওপেনার যথাক্রমে শূন্য এবং ১০ রান করে মাঠের বাইরে চলে যান। ‌

এরপর দলের অভিজ্ঞ ক্রিকেটার বাস ডি লিড (Bas de Leede) এবং অধিনায়ক স্কট এডওয়ার্ডস (Scott Edwards) স্কোরবোর্ড এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। তবে বাস ডি লিডের ব্যাট থেকে ৪৪ বলে ২৭ রান এবং এডওয়ার্ডসের ব্যাট থেকে ৪৯ বলে ৩৩ রান আসে। এই রানের ওপর ভর করে নেদারল্যান্ডস ৩৯ ওভারে মাত্র ১৩৭ রানে অল আউট হয়ে যায়। নেপালের হয়ে কুশল ভর্তেল (Kushal Bhurtel) বল হাতে সবচেয়ে বেশি ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছিলেন। তিনি ম্যাচে মাত্র ৭ ওভারে ২০ রান দিয়ে ৪ টি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট তুলে নেন।

এরপর দলের হয়ে ওপেনিং করতে এসেও কুশল দুরন্ত শুরু করেন। মাত্র ১১ বলে ২ টি চার এবং ৩ টি ছয় মেরে ২৮ রান করে তিনি আউট হয়ে যান। এরপর ব্যাট হাতে আসিফ শেখ (Aasif Sheikh) এবং অনিল কুমার সাহ (Anil Kumar Sah) ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠেন। দুজনেরই ব্যাট থেকে দুরন্ত অর্ধশতরান আসে। এর ফলে ১ উইকেট হারিয়ে ১৫.২ ওভারে নেপাল তাদের প্রয়োজনীয় রান তুলে নেয়। উল্লেখ্য নেদারল্যান্ডস গত বছর একদিনের বিশ্বকাপে অসাধারণ পারফরমেন্স করে সকলের নজর কেড়েছে। তাই এইরকম দলকে ৯ উইকেটে হারিয়ে নতুন দল হিসাবে নেপাল দৃষ্টান্ত তৈরি করলো।

নেদারল্যান্ডস বনাম নেপাল ম্যাচের স্কোরবোর্ড

নেদারল্যান্ডস- ১৩৭/১০ (৩৯.০ ওভার)

স্কট এডওয়ার্ডস- ৩৩ (৪৯)

নেপাল- ১৪১/১ (১৫.২ ওভার)

অনিল কুমার সাহ- ৫৭* (৩৬)