মদ্যপান করে রঞ্জিতে আম্পায়ারিং করেন আম্পায়াররা? ধোনির পর এবার ম্যাচ অফিশিয়ালদের নিয়ে চাঞ্চল্যকর মন্তব্য মনোজের

পেশাদারি ক্রিকেট থেকে অবসর নিতেই রঞ্জি ট্রফি তথা ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারিং নিয়ে এক সাক্ষাৎকারে পোল খুলেছেন প্রাক্তন বাংলা অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারি।

রবিবার পেশাদারি ক্রিকেট থেকে বিদায় ঘোষণা করেছেন বাংলার অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারি (Manoj Tiwary)। কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে বিহারের (Bengal vs Bihar) বিরুদ্ধে এই রঞ্জি ট্রফি (Ranji Trophy 2024) ম্যাচই ছিল তার পেশাদারি ক্রিকেটের শেষ ম্যাচ। ঘরোয়া ক্রিকেটে ১০ হাজারের অধিক রান সংগ্রহকারী এই ক্রিকেটার অবসর নিতেই নানা কথা তুলে আনছেন ক্রিকেট মহলে।

একটি সংবাদমাধ্যমে ভারতীয় দল থেকে বাদ পড়ার প্রসঙ্গ নিয়ে কথা তুলেছিলেন প্রাক্তন বাংলা অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারি। এখন আবার তাকে কথা বলতে শোনা গেছে রঞ্জি ট্রফিতে তথা ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারিং নিয়ে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেওয়া এই সাক্ষাৎকারে ঘরোয়া ক্রিকেটের আম্পায়ারদের নিয়ে পোল খুলেছেন এই তারকা।

রঞ্জিতে আম্পায়ারিং নিয়ে কথা বলতে গিয়ে মনোজ তিওয়ারি বলেছেন, “আম্পায়ারিং নিয়ে যথেষ্ট চিন্তাভাবনার অবকাশ রয়েছে। ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারিংয়ের মান খুবই নিম্ন মানের। বোর্ডের উচিত আম্পায়ারিংয়ের মান নিয়ে চিন্তাভাবনা করা। শুধু একটা দুটো সিজন দেখেই আমি এই কথা বলছি না। বছরের পর বছর ধরে এমনটা হয়েই আসছে। একদম হাস্যকর শিশুসুলভ কান্ড, সমস্তকিছু ভুলভ্রান্তি করা হয়।”

প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে নিজের অভিজ্ঞতা ব্যাখ্যা করতে গিয়ে প্রাক্তন বাংলার অধিনায়ক জানিয়েছেন, “একজন ক্রিকেটারকে যদি ডোপ টেস্টে উত্তীর্ণ হতে হয়, তাহলে ঘরোয়া ক্রিকেটের আম্পায়ারদের ক্ষেত্রেও এই নিয়ম চালু করা উচিত বিসিসিআইয়ের। আমি বহুবার দেখেছি আম্পায়াররা ঠিক কেমন একটা ভাবে ম্যাচ পরিচালনা করতে নামছেন। তাদের দেখে মনে হয় যেন তারা ঘুমন্ত। এমন অবস্থায় তারা কীভাবে ম্যাচ পরিচালনা করবেন? আমি তাদের জিজ্ঞাসা করেছিলাম, “স্যার গতকাল রাতে কী পান করেছেন?” তার জবাবে তারা আমাকে বলেছিল, “আমি হুইস্কি অন দ্যা রকস পছন্দ করি।” তারপর তারা হাসতে থাকে। বোর্ডের উচিত ম্যাচ পরিচালনার আগে সমস্ত আম্পায়ারদের পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যবেক্ষণ করা।”