পাঁচজন প্লেয়ার, যাদের ঘরোয়া ক্রিকেটে অসামান্য পরিসংখ্যান থাকা সত্ত্বেও ভারতীয় দলে সুযোগ পাননি

ভারতের জনসংখ্যা ১৪০ কোটিরও বেশি। লাখ লাখ শিশু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন দেখে। এ জন্য তারা শৈশব থেকেই জীবন দিয়ে প্রস্তুতি নেয়। দিনরাত অনুশীলনের পর কোথাও গিয়ে ঘরোয়া ক্রিকেট (Domestic Cricket) খেলার সুযোগ পায় তারা। সেখানে ঘাম ঝরানোর পর ভারতের হয়ে আন্তর্জাতিক ম্যাচে সুযোগ মেলে। তবে কিছু অনন্য ক্রিকেটার রয়েছে যারা ঘরোয়া ক্রিকেটে অবিশ্বাস্যভাবে খেলার পরেও আর কখনও ভারতের হয়ে খেলার সুযোগ পাননি। আজ আমরা আপনাদের এমনই ৫ জন খেলোয়াড়ের কথা বলতে যাচ্ছি।

১) অমরজিৎ কায়পি (Amarjeet Kaypi)– আশি ও নব্বইয়ের দশকে পাঞ্জাবে জন্ম নেওয়া অমরজিৎ কায়পি ঘরোয়া ক্রিকেটের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ছিলেন। প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে তিনি ৫২.২৭ গড়ে ৭৮৯৪ রান করেছেন। যার মধ্যে রয়েছে ২৭টি সেঞ্চুরির ইনিংস। অবসরের সময় রঞ্জি ট্রফিতে সর্বাধিক রান করার রেকর্ড ছিল তাঁর।

২) রাজেন্দ্র গোয়েল (Rajinder Goel)– হরিয়ানা ও দিল্লির হয়ে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলা রাজেন্দ্র গোয়েল সবচেয়ে দুর্ভাগা ক্রিকেটারদের একজন। ১৯৫৮-৫৯ মরসুমে তার রঞ্জি ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে। ৬৩৯ উইকেট নিয়ে তিনি এখনও রঞ্জি ইতিহাসে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী। বাঁহাতি এই স্পিনার ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত ঘরোয়া ক্রিকেট খেলেছেন, কিন্তু ভারতের হয়ে কখনও অভিষেক করেননি।

৩) জালাজ সাক্সেনা (Jalaj Saxena)– ৩৬ বছর বয়সী জালজ সাক্সেনা বর্তমানেও ঘরোয়া ক্রিকেট খেলছেন, তবে ভারতের হয়ে অভিষেকের আশা পুরোপুরি শেষ হয়ে গেছে। ১৩৩টি প্রথম-শ্রেণীর ম্যাচে ৪১০ উইকেট ও ৬৫৬৭ রান করেছেন এই অলরাউন্ডার। লিস্ট এ-তে অফ-স্পিন থেকে ১০৪ ম্যাচে নিয়েছেন ১১৭ উইকেট। ৩টি সেঞ্চুরির সাহায্যে ২০৩৫ রানও করেছেন এই ব্যাটসম্যান। এই রেকর্ডের পরও ভারতের হয়ে খেলার সুযোগ পাননি তিনি।

৪) অমল মজুমদার (Amol Mazumder)– মুম্বাইয়ের অমল মজুমদার বিশ্বের অন্যতম দুর্ভাগা ক্রিকেটার। ঘরোয়া ক্রিকেটে মুম্বাইয়ের হয়ে অভিষেক ম্যাচে ২৬০ রান করেন তিনি। ১৭১ টি প্রথম-শ্রেণীর ক্যারিয়ারে মজুমদার ১১১৬৭ রান করেছেন। লিস্ট এ-তে ৩৮ গড়ে তার ব্যাট থেকে আসে ৩২৮৬ রান। মজুমদারকে শচীন টেন্ডুলকারের মতো প্রতিভাবান ব্যাটসম্যান হিসাবে বিবেচনা করা হত, তবে কখনও ভারতের হয়ে খেলেননি।

৫) মিঠুন মানহাস (Mithun Manhas)– দিল্লির মিঠুন মানহাসের ঘরোয়া রেকর্ড ছিল শক্তিশালী। প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে তিনি ৪৫.৮২ গড়ে এবং লিস্ট এ-তে ৪৫.৮৪ গড়ে রান করেন। তার নামে ১৫ হাজারেরও বেশি রান রয়েছে। ২০১৭ সাল পর্যন্ত ঘরোয়া ক্রিকেটে অংশ নেন তিনি। আইপিএলে চেন্নাই, দিল্লি ও পুনে ওয়ারিয়র্সের হয়ে খেলেছেন তিনি। কিন্তু ভারতের হয়ে কখনো সুযোগ পাননি।