এই শারীরিক অসুস্থতার কারণে মাত্র ৩৭ বছর বয়সে অবসর নিয়েছিলেন এবিডি, অবসরের দু’বছর পর আজ প্রকাশ করলেন আসল সত্য

প্রায় বছর দুয়েক হয়ে গেছে, সব ধরণের ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন এবি ডি ভিলিয়ার্স (AB de Villiers)। নিঃসন্দেহে এবিডি ছিলেন বিশ্বক্রিকেটে সকল ভক্তদের প্রিয় একজন ক্রিকেটার। স্টেডিয়ামের এমন কোনো কোনা নেই, যেখানে বল পাঠাননি তিনি। প্রায় এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বাইশ গজে শাসন চালিয়ে এসেছেন এই কিংবদন্তি ক্রিকেটার।

তবে দুই বছর আগে ক্রিকেটকে বিদায় জানালেও, এবিডি তার শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিলেন ২০১৮ সালে। তারপর থেকে প্রায় ৬ বছর মতো হতে চলেছে, শেষবার তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা। তারপর মিস্টার ৩৬০ ডিগ্রিকে ছেড়েই দুটি বিশ্বকাপ এবং দুটি টি-২০ বিশ্বকাপ কেটে গেছে। কিন্তু সবসময় রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরকেই (Royal Challengers Bangalore) দেশের থেকে কোনো অংশে কম মনে করতেন না দক্ষিণ আফ্রিকান কিংবদন্তি। এদিকে এবিডির যা ফিটনেস, তিনি চাইলেও আরও বেশ কিছুবছর খেলে যেতে পারতেন। কিন্তু শারীরিক কিছু সমস্যার কারণে মাত্র ৩৭ বছরেই সবধরণের ক্রিকেটকে বিদায় বলতে হয় মডার্ণ ক্রিকেটের শ্রেষ্ঠ ব্যাটসম্যানকে।

ডি ভিলিয়ার্স সেই সম্বন্ধে উইসডেন ক্রিকেটকে বলেছেন, “আমার ছেলে হঠাৎ আমার চোখে মেরেছিল। আমি শেষ দুই বছর ডিটাচড রেটিনা নামক চোখের ব্যাধিতে ভুগেছি। তারপর থেকেই আমার ডান চোখে দৃষ্টি হারানো শুরু। তবে ডাক্তার যখন জিজ্ঞেসা করেছিলেন কীভাবে আপনি এত সুন্দর খেললেন? উত্তরে আমি বলেছি আমার কেরিয়ারের শেষ দুই বছর আমার বাম চোখটি খুব ভালো কাজ করেছে।”

অবসর ঘোষণার দুইবছর পর সেই দূর্বলতার কথা ফাঁস করেছেন এবিডি। এরকম ব্যাধি না হলে, তার কথা মাফিক তিনি এতদিনেও খেলে যেতেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোনো কারণে সুযোগ না পেলেও, রীতিমতো আইপিএলে খেলতে পারতেন। এবিডি তার ডান চোখে যে ব্যাধিটি হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন, সেই রোগটির বেশ কিছু উপসর্গ হল চোখে আবঝা দেখবে, অল্প আলোতে দেখতে অসুবিধা, লাইটের কারণের বেশ সমস্যা এবং ধীরে ধীরে চোখের দৃষ্টিশক্তি কমে আসা। এই ভয়াবহ ব্যাধির কারণে অনেক আগেই সমাপ্ত হয়েছে এবিডির কেরিয়ার।